শুক্রবার | ২৫শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

জনদুর্ভোগ লাঘবে গণপরিবহন খুলে দেয়া হোক

প্রকাশিত :
সাইফুর রহমান কায়েস : মানুষকে আজ থেকেই তার কর্মস্থলে ফিরতে হবে জীবিকার্জন নিশ্চিত করতে । যে মানুষগুলো জীবনের তাগিদে শিকড়ের টানে বাড়ি ফিরেছিলেন সকল অনিশ্চয়তাকে তুচ্ছ জ্ঞান করে সে মানুষেরাই আবার ঘর ছেড়ে দেশের নানাপ্রান্ত ও প্রান্তরে ছুটবেন আজ থেকে । তাদের ছুটাছুটির ফলে অনেক প্রাণেরই ক্ষয় হয়েছে ।এটা জাতীয় দুর্যোগে সরকারের অব্যবস্থাপনারই ফল ।
করোনা সংক্রমণের দোহাই দিয়ে শুধু গণপরিবহনকেই লাগাম টেনে ধরে রাখলেও আর কোনোকিছুইতেই এর প্রভাব চোখে পড়েনি । বাজারঘাট , দোকানপাট , শপিংমল , সুপারমার্কেট সহ অনেককিছুই তো খোলা রাখা হয়েছে । অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়েছে কোথাও করোনার দাপট নেই , ছিলো না । ছিলো শুধু গণপরিবহনে । ছিলো গরীব রিকশাওয়ালা র টিউবে আর টায়ারে । রিকশার চাকা উল্টে দিলেই করোনা চলে যায়। আর থাকে ডাক্তারের আইডি কার্ড না দেখানোর মাঝে ।এতে করে মানুষের দুর্ভোগ চরমে উঠেছে ।
ঊনের ঘরে দোনা টাকা খরচ করে তাদেরকে ভ্রমণ করতে হয়েছে । সিলেট থেকে বাসে দীঘিনালা যেতে যেখানে সাতশো টাকা লাগতো সেখানে খরচ হয়েছে মাথাপিছু বত্রিশ শো থেকে সাড়ে তিন হাজার । আসাযাওয়া বাবদ গুণতে হবে মারহাপিছু সাত হাজার টাকা । অথচ যাদের উপর এই খড়্গটি চাপিয়ে দেয়া হলো তারা কিন্তু মধ্যম আয়ের মানুষ । অধিকাংশ ক্ষেত্রে নিম্নপ্রান্তিক আয়ের মানুষেরাও রয়েছেন । যারা দেশের একেবারে প্রান্তের জনপদ থেকে পরিজন নিয়ে আবার বড় শহরে ফিরবেন তাদের অবস্থা ইতিমধ্যেই দুরবস্থাপন্ন হয়ে পড়েছে । সাথে শারীরিক , আর্থিক এবং মানসিক চাপ তো রয়েছেই ।
মাসের বাকী দিনগুলি যে তারা কিভাবে চলবেন সে হিসাব কর্তা ব্যক্তিদের মগজে নাই । এই প্রান্তিক শ্রেণির কালো টাকা নেই , সঞ্চয় নেই । আছে শুধু বুকের বল ও পাজর । সরকারের অব্যবস্থাপনার কারণে তাদের বুকের বল ও পাজর দুটোই ভেঙ্গে গেছে – যেটি অবশিষ্ট ছিলো ধরে নিয়েছিলেন প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর একটা বড় অংশ । এই শ্রেণি আবার এনজিওসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্যভূক্ত জনগোষ্ঠী , যারা ঋণ নিয়ে ছোটখাটো ব্যবসা করে জীবিকানির্বাহ করে থাকেন ।
আবার এদেরকে ঋণের খড়্গবানে জর্জরিত করতে না পারলে তাদের লালবাত্তি জ্বলতে থাকবে । এই ঋণচক্রের উপর গ্রামীণ অর্থনীতির চাকা ঘোরা বা না ঘোরার বিষয়টি ওতপ্রোতভাবে জড়িত । এই এনজিওগুলি ক্ষুদ্র ও মাঝারী উদ্যোগের পেছনের পুজির যোগানদার ।
ব্যবস্যার প্রসার অবিসংবাদিতভাবে যোগাযোগব্যবস্থার অবাধ ও নির্বিঘ্নতার উপর পুরোপুরিভাবে নির্ভরশীল । সহজলভ্য যোগাযোগব্যবস্থা ও পরিবহনসেবা চালুর মাধ্যমে পণ্যের সুলভ ও সাশ্রয়ী মূল্য নির্ধারণ সম্ভব এবং অত্যাবশ্যকীয়ভাবে তা জনসাধারণের সাশ্রুলোচনেরও অন্যতম কারণ ।
তাই আমরা মনে করি এইদেশকে ফড়ে, দালালদের হাত উদ্ধার করে গণপরিবহনের অবাধ চলাচল নিশ্চিত করা হোক ।
দূরপাল্লার বাস ও ট্রেন চলাচল উণ্মুক্ত করে দেয়া হোক । জনমনে ও জীবনে স্বস্তি ফিরিয়ে আনা হোক । চাপিয়ে দেয়া খড়্গ থেকে মুক্তি চায় দেশের জনগণ । অন্ততঃ দুই সপ্তাহের জন্য খুলে দেয়া হোক ।
ভোক্তভোগী জনসাধারণ , যাদের বেগমপাড়ায় বাড়ি নেই মা আ হানিফের মতো যাদের পরিবার কানাডায় থাকেন না , মালয়েশিয়া বা অষ্ট্রেলিয়ায় যাদের দ্বিতীয় স্বদেশ বলে কিছুই নেই । এদের আছে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে বাড়ি । যেখানে তাদের নাড়ীনক্ষত্র পোতাশ্রয় ।
এদের সুইস ব্যাংকে নয় , কোমরের খতিতে থাকে কিছু ঘামেভেজা কাগজি নোট আর ধাতবমুদ্রা । আর থাকে খেয়েপরে বেচে থাকার স্বপ্ন ।
লেখক : প্রধান সম্পাদক, শব্দকথা টোয়েন্টিফোর ডটকম।
আজকের সর্বশেষ সব খবর