বৃহস্পতিবার | ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

বানিয়াচংয়ে সরকারি পুকুর থেকে মাটি উত্তোলন, অভিযোগ দায়ের

প্রকাশিত :
বানিয়াচং (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি : বানিয়াচংয়ে সরকারি পুকুর থেকে অবৈধভাবে মাটি উত্তোলন করছে আবুসালেক নামের এক প্রভাবশালী। সে উপজেলার আমিরখানি গ্রামের আবুল মছিনের পুত্র। প্রতিকার চেয়ে গত ৪ এপ্রিল বানিয়াচংয়ের সহকারি কমিশনার (ভূমি) বরাবরে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন একই এলাকার নানু মিয়ার পুত্র মোঃ টেনু মিয়া।

অভিযোগের পর সরজমিনে তহশিলদার গেলেও ওই সরকারি পুকুর থেকে মাটি উত্তোলন বন্ধ করা হচ্ছে না। বরং  আরও বেশী শ্রমিক নিয়োগ করে রাতারাতি পুকুর খনন করে চার পাড় ভরাট করে এলাকার হাজারো মানুষের বাড়িঘরের পানি নিস্কাসনের পথ বন্ধ করে দিচ্ছে সে। ফলে চরম ক্ষুব্দ এলাকাবাসী।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, আমিরখানী মৌজার হাল জে.এল. নং ১১৪, খতিয়ান নং ১ ও সাবেক দাগ ৫১৫, হালে ৫০৩ দাগের ৩৬ শতকের সরকারি পুকুরটি এলাকার একটি মৎস্যজীবি সমিতি সরকার থেকে লীজ গ্রহণ করে। তারা পুকুরটি আবুসালেককে বেআইনিভাবে সাবলিজ প্রদান করে। ওই পুকুরের পাশে এক ব্যক্তির মালিকানা একটি পুকুর রয়েছে।

সম্প্রতি আবুসালেক কৌশলে পুকুর ২টির মধ্যখানে বাধ কেটে সরকারি ও মালিকানা পুকুর একাকার করে ফেলেছে। শুধু তাই নয় সরকারি পুকুর থেকে শতজন শ্রমিক নিয়োগ করে ২টি পুকুরকে একটি পুকুরে রূপান্তরিত করে মাটি উত্তোলন করছে। ফলে সরকারি সম্পত্বি বেদখলের পাশাপাশি পুকুরের পাশে একটি মিনি কালভার্ট (এলাকাবাসীর পানি নিস্কাসনের রাস্তা) এর মুখ বন্ধ হয়ে পড়েছে। এতে এলাকার জনসাধারণ পড়েছেন চরম ভোগান্তির মুখে।

এলাকাবাসী এলাকার জানান, এ ব্যাপারে তহশিলদার মুজিবুর রহমান সরজমিনে আসলেও তিনি এর কোন প্রতিকার করেননি। এলাকাবাসীর দাবী দ্রুত সার্ভেয়ার নিয়োগ করে সরজমিনে পরিমাপ করে জনস্বার্থে সরকারি পুকুরটি দখলের কবল থেকে রক্ষা করবেন প্রশাসন।
এ ব্যাপারে সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইফফাত আরা জামান, অভিযোগের বিষয়ে আলোকপাত করা হয়েছে। দোষী হলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
আজকের সর্বশেষ সব খবর