রবিবার | ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

বংশ নয় কর্মই মর্যাদার মাপকাঠি

প্রকাশিত :
শায়খ মাওলানা কামাল‌ উদ্দীন খান আল-হুসাইনী : মানুষের স্বভাব হলো নিজের উপর আন্দাজ করে কথা বলে। ভালো মানুষ সমাজের সবাইকে তার মতো ভালো মনে করে থাকে। আর খারাপ মানুষ সমাজের সবাইকে তার মতো খারাপ মনে করে থাকে। যদিও বেশ ধরে থাকে দরবেশের! এটা লোকদেখানো দরবেশী।
এরা নিজেরা আকাম-কুকাম সব করে। আর মানুষের কাছে পরহেজগারীর ভাব ধরে থাকে! এরা নিজেরা যেসব আকাম-কুকাম করে থাকে, সেসব আকাম-কুকামের অপবাদ ভালো মানুষদের প্রতি আরোপ করতে সদা ব্যতিব্যস্ত থাকে! ভালো মানুষদেরকে সমাজের চোখে নিজেদের সমান বানানোর জন্য! এদের জন্য শত আক্ষেপ! পরিণামে সমাজের চোখে ওরাই অপদস্ত ও অপমানিত হয়!
অতএব, অকপটে বলতেই হয় যে, আসলে ভালো মানুষরা প্রকৃতই ভালো। উন্নত মন মানষিকতা ও সমাজের উচ্চ বংশের ভদ্র লোকই হয়ে থাকে। পক্ষান্তরে খারাপ মানুষরা প্রকৃতই খারাপ, নিচ মন মানষিকতা ও সমাজের নিচ বংশের অভদ্র ও ইতর লোকই হয়ে থাকে।
এদেরকে উপদেশ করে বলবো যে, ভালো উন্নত মন মানষিকতা ও সমাজের উচ্চ বংশের ভদ্র লোক হতে পঁয়সা লাগে না। কাজ ভালো করো! সৎ ও ন্যায়পরায়ন হয়ে যাও! মন মানষিকতাকে ভালো মানুষদের মত উন্নত কর! তবেই তুমি ভালো মানুষ আর সমাজের উচ্চ বংশের ভদ্র লোক হিসেবে গণ্য হবে। নতুবা, বাপ-দাদা যতই ভালো হউক না কেন , তো‌মার কাজ-কর্ম যদি খারাপ হয় ; তবে তো‌মার বংশ মর্যাদা তো‌মার থেকে কেটে পরবে।
ও ! হ্যাঁ, যদি তুমি উচ্চ বংশের সন্তান হও , আর তো‌মার কাজ-কর্মও ভালো হয় ; তবে তখন তো‌মার বংশ মর্যাদা , তো‌মার কর্ম মর্যাদার সাথে যোগ হয়ে  তুমি হবে সমাজের চোখে দ্বিগুণ সম্মানী ও মর্যাদার অধিকারী।
মোদ্দাকথা, কর্মেই সম্মান এবং কর্মেই অপমান ইহলৌকিক জীবনেও পারলৌকিক জীবনেও। আল্লাহর কাছেও বান্দার কাছেও। সুতরাং সর্ব জীবনে সবার কাছে সম্মান পেতে হলে অবশ্যই কাজ-কর্ম সংশোধন করতে হবে। তবে সম্মান একমাত্র আল্লাহর কাছেই চাইতে হবে। আল্লাহ্ সকলকে কর্ম সংশোধনের তাওফীক দান করুন। আমীন।
লেখক :   শিক্ষা-সচীব: মাদরাসাতুল হারামাইন ও  খতীব: ৩নং রাজবাড়ি জামে মসজিদ, বানিয়াচং , হবিগঞ্জ।

 

আজকের সর্বশেষ সব খবর