রবিবার | ১লা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

হিংসা ও খুটি

প্রকাশিত :
মোঃ দেলোয়ার ফারুক তালুকদার শাহজাহান :
আপনি যদি কোন অল্প শিক্ষিত বা অশিক্ষিত লোককে প্রশ্ন করেন হিংসা কি রকম? বলবে খুব খারাপ আর এটা করা যাবে না।
যদি শিক্ষিত লোক কে জিজ্ঞেস করেন তবেও বলবে ইহা খুব খারাপ আর হারাম ও ত।
আর ইসলামি পড়ালেখা জানা ব্যক্তিকে যদি বলেন বলবে ইহা একটি হারাম কাজ আর এতে নেকিও ধ্বংস হয়ে যায়।
কিন্তু আপনি কি বুঝতে পারছেন যে আমরা জেনে বুঝে বা না বুঝে হিংসার মত জগন্য কাজে মত্ত্ব আছি।
শুধু ধরনটা ভিন্ন।
ধনীরা গরীবকে, গরীব ধনীকে, সূস্হ অসুস্থকে, উপরের লেবেল এ চাকরি করারা নিচের দিকের লোকজনকে।
এক এলাকা লোক অন্য এলাকার লোককে।
কোন বিবাদের সমাধান এ বিভিন্ন বিষয় বিবেচনা করে হিংসা করে সমাধানের চেষ্টা করা হয়।. আর এ কারণেই সমাধান ত হয়ই না উল্টো আরও লেগে থাকে।
আর লেগে থাকলেই লাভ।
কারন এতে তাদের কাছে যেতে হবে। আর দলও ভারী থাকল।
হিংসা করা হয় মূলত দল ভারী করার জন্য।
এতে লাভ সামান্য কয়েক জনের ই হয়।
আর তাদের কথায় আমরা একে অন্যকে হিংসা করি যদিও আমরা পাশাপাশি থাকি। প্রত্যেক দিন দেখা হয়, একই বাজারে বাজার করি, একই মসজিদে নামাজ পড়ি। কিন্তু মনের হিংসা ভূলতে পারি না।
বা চাইলেও প্ররোচনার কারণে ভূলতে পারিনা।
আবার এমন সব লোক আপনাকে আমাকে হিংসার প্ররোচনা দেয় যে তাদের কাছে আমাদের কোন কোন কারণে যেতে হয়। সে হোক পরামর্শ ও সহযোগিতা।
তাদের এ হিংসার প্ররোচনার আমরা প্ররোচিত হয় হিংসার খুটি বা বীজ অন্তরে বপন বা লালন করব না।
কারণ এ হিংসায় আপনার পুরো ই ক্ষতি তা যেমন দুনিয়াবি তেমনি আখেরাতেরও।
আর যে দিল সে দুনিয়ার কিছু লাভ ফেল, আরও কত কি?
তাই বলে আমরা তাদের কাছে যাব না বিষয়টা এমন নয়, আমরা যাব আর যদি হিংসা বিদ্বেষ এর কথা বলে শুনে চলে আসব কারণ না শুনেত আসা কঠিন।
কিন্তু শুনে এসে যা করতে হবে তা হলো যে আল্লাহ হিংসা করতে নিষেধ করেছেন আর হিংসা একটি মহাপাপ তাই বলেছেন ত বলেছেন।
আমি এতশত বুঝি না, আমি কাউকে হিংসা করি না আর করব না।
আপনার কথা আপনার ই থাক।
কারণ এ হিংসার ফল আপনি ভোগ করবেন আর কেউ নয়।
আর বুঝেননি বলে হিংসা করেছেন সেটা বলে পার পাওয়া কঠিন।
কারণ একটা জমি কিন্ত তাদের কথাই কিনবেন না।
অনেক যাচাই বাচাই করে কিনবেন।
তাই যেই বলল আর হিংসা শুরু করে দিলেন আর সে অনুযায়ী কাজ করলেন আর বুঝতে পারিনি বললেন একসময় সেটা চলবে না। হিসাব সবাই কে -ই দিতে হবে।
আমরা পরামর্শ ও সহযোগিতা এর জন্য তাদের কাছে যাব তাদের কথা শুনব যদি হিংসা বিদ্বেষ এর কথা বলে আমরা তাদের সে কথা বাস্তব করব না।
তাই আসুন, আমরা একে অন্যের প্রতি হিংসা- বিদ্বেষ পোষণ না করে ভালোবেসে শান্তিময় জীবন- যাপন করি।
আল্লাহ আমাদের সবাইকে  এই দূর্যোগময় সময়ে একসাথে শান্তিময় জীবন-যাপন করার তওফীক দিন।
আর আমাদের সবাইকে মাফ করুন আর হেদায়েত দান করুন। আমীন
লেখক : অ্যাডভোকেট, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট ও জজ কোর্ট হবিগঞ্জ ।
আজকের সর্বশেষ সব খবর