শুক্রবার | ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের অতীত, বর্তমান : ভবিষ্যৎ ভাবনা

প্রকাশিত :

ফজল উল্লাহ খান: পৃথিবীর মহাগ্রাম বানিয়াচং। যেখানে রয়েছে ১৫টি ইউনিয়ন। এ গ্রামে ফুটবলের প্রচলন ছিল দীর্ঘদিনের।ছোট বেলায় ফুটবল খেলা দেখতে এল আর হাইস্কুল মাঠে যেতাম। তখন ক্রিকেট খেলার তেমন প্রচলন ছিল না। আমরা শাপলা সংসদ নামে একটি সংগঠন গড়ে তুলি। এ সংগঠনের মাধ্যমে প্রথম কাঠের বলের সেট আনা হয়। এল আর হাইস্কুলে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি হওয়ার পর তপন স্যার, বিদ্যুৎ স্যারসহ প্রণব স্যারের সাথে ক্রিকেট খেলি। এ সময় যারা ক্রিকেট ভালো খেলতেন, তাদের মধ্যে মাসুদ আলী খান নিলু, জয়দা, নিতুদা, মখলিছ ভাই (মরহুম), বেলায়েত আলী খান মিশু, দিলোয়ার আলী খান অন্যতম। এর ধারাবাহিকতায় ক্রমশ ক্রিকেটের প্রসার শুরু হয়। ১৯৯৪ সালে জনাব আলী ডিগ্রি কলেজের ছাত্র সংসদ অফিসে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সর্ব সম্মতিক্রমে কাজল চ্যাটার্জিকে সভাপতি এবং আমাকে (ফজল উল্লাহ খান) সাধারণ সম্পাদক করে বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাব এর আত্মপ্রকাশ ঘটে। এর পর ১৯৯৬ সালে সাবেক এমপি মরহুম শরীফ উদ্দিন স্যারের মৃর্ত্যুর পর বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের তত্ত্বাবধানে স্যারের নামে এল আর হাইস্কুল মাঠে এবছরই ক্রিকেট লীগ শুরু হয়।
বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাব ১৯৯৮ সাল থেকে হবিগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার অধীনে প্রথম বিভাগ ক্রিকেট লীগে অংশগ্রহণ করে। এ বছরই সবাইকে অবাক করে দিয়ে আমরা সেরা দলে পরিণত হই। প্রত্যেক দলের কাছেই বানিাচং ক্রিকেট ক্লাব ছিল একটি আতঙ্কের নাম। সে সময় যারা সেরা নৈপুণ্য দিয়ে সবার দৃষ্টি কেড়েছিলেন এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছেন, অপু ভট্রাচার্য, শেখ আবুল মনুর তুহিন, সালাহ উদ্দিন সালেহ, রায়হান, পার্থ সারথি গোস্বামী পান্না,নাছের খান, আমান খান, আবু উমায়ের খান, আজিজুর রহমান খেলু, সামছুল কিবরিয়া মন্ডল, নেছার আহমেদ মিশুক, উজ্জল উল্লাহ খান, রুহুল আমীন, কাওছার আহমেদ প্রমুখ। ক্রমাগত ক্রিকেট ক্লাব সাংগঠনিক অবস্থান সু-দৃঢ় হতে থাকে এসব খেলোয়াড়দের উপর ভর করে। ভালো খেলা প্রদর্শন করায় জেলা দলে খেলে আমান খান ও কাউছার আহমেদ। বানিয়াচং ক্রিকেট লীগ খেলা শুরু করার ফলে নতুন নতুন খেলোয়াড় নিজেদের ভালো খেলা দিয়ে সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সমর্থ হয়। ২০১৬-১৭ খ্রি. বানিয়াচং উপজেলা পরিষদের সুযোগ্য চেয়ারম্যান শেখ বশির আহমেদের পৃষ্ঠপোষকতায় বন্যা এন্টার প্রাইজ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট শুরু করি। যা বানিয়াচং এর ক্রিকেট ইতিহাসে সব থেকে বৃহৎ টুর্নামেন্টের খ্যাতি পেয়েছে। ৩৫টি দল এতে অংশ গ্রহণ করে। উক্ত টুর্নামেন্টের মাধ্যমে বানিয়াচং থেকে নতুন নতুন খেলোয়াড় তৈরি হচ্ছে। গত ১৩ই সেপ্টেম্বর উপজেলা পরিষদের উদ্যোগে এই ৩৫টি ক্লাবকে ব্যাট ও বল প্রদান করা হয়। এতে দলের খেলোয়াড়সহ ক্রিড়ামোদী ব্যক্তিরা আরো উজ্জীবিত হয়েছেন। এটি বানিয়াচং এর ইতিহাসে মাইলফলক হিসাবে থাকবে। ক্রিকেট উন্নয়নে বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের নেতৃবৃন্দসহ সকল সদস্য নিজেদের উজাড় করে দিচ্ছেন। আমার বিশ^াস এ ধারা অব্যাহত থাকলে আগামীতে বানিয়াচং থেকে ঢাকার লীগ পর্যায়ে খেলোয়াড় তৈরী হবে।
বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের ভবিষ্যৎ ভাবনা ঃ বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের ভবিষ্যৎ ভাবনা হচ্ছে একজন দক্ষ প্রশিক্ষক দিয়ে স্থানীয় ক্রিকেটারদের প্রশিক্ষণের আওতায় আনা। এ ছাড়া ক্রিকেট একাডেমি গঠন করে ক্রিকেটারদের দক্ষ হিসেবে গড়ে তোলা। প্রতিবছর জাঁকজমক একাধিক লীগের মাধ্যমে নতুন নতুন খেলোয়াড় তৈরী করা ইত্যাদি।
লেখক : সভাপতি বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাব (বিসিসি) ও জিএস,
জনাব আলী ডিগ্রি কলেজ, বানিয়াচং।

আজকের সর্বশেষ সব খবর