রবিবার | ১লা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

অহংকার পতনের মূল

প্রকাশিত :

আলহাদী ॥ একদা এক দরবেশ এলাকার এক ধনাঢ্য পরিবারে হাঁক দিলেন খাবারের জন্য। ধনাঢ্য ব্যক্তিটি ছিল খুব অহংকারি এবং হিংস্র স্বভাবের। দরবেশের উপস্থিতি সহ্য হলো না তার। ধন্যাঢ্য ব্যক্তি অধীনস্থ ভৃত্যদের নির্দেশ দিলেন দরবেশকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বের করে দেওয়ার জন্য। যেই ভাবা সেই কাজ। কোনো কিছু খাবার না দিয়েই মালিকের নির্দেশ মতে দরবেশকে গলা ধাক্কা দিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হলো। মালিকের এ আচরণে খুব ব্যথিত হন দরবেশ। সময়ের বিবর্তনে একদিন এক ভিক্ষুক হাঁক দিল আরেক বিত্তশালীর বাড়িতে। বাড়ির মালিক অধীনস্থদের নির্দেশ দিলেন ভিক্ষুককে উদর ভরে খাবার দেওয়ার জন্য। ভৃত্য খাবার নিয়ে যখন আসলো তখন চিৎকার দিয়ে অশ্রুসিক্ত নয়নে মালিকের দরবারে পুনরায় চলে গেল। ভিক্ষুক্ষকে না দিয়ে খাবার কেন ফেরত আনা হলো তাতে ধমকালেন মালিক ?
ভৃত্য বললো, ওই যে ভিক্ষুক তিনি এক সময় আমার মালিক ছিলেন। আজ তিনি ভিক্ষুক এ জন্য কাঁদছি! মালিক বললেন, ওই পরিণতি তার প্রাপ্য ছিল, আজ সে পেয়েছে। কোনো একদিন আমি তার দরবারে গিয়েছিলাম অভুক্ত হয়ে খাবারের জন্য। হাঁক দিতেই সে তার অধীনস্থদের দিয়ে আমাকে লাঞ্চিত করেছে এবং খাবার না দিয়ে তাড়িয়ে দিয়েছিল। সে ছিল বড় অহংকারি। অসহায়-গরীব মানুষদের দেখলে হিংসা করতো। প্রতিনিয়ত ধন সম্পদের বড়াই করতো। আজ সে রাস্তার ভিখারী আর আমি বিরাট ধন-সম্পত্তির মালিক। সবকিছু মহান মালিকের ইচ্ছা। তাকে তাড়িয়ে না দিয়ে পেট ভরে খাবার দাও। সে ইচ্ছা মাফিক ভোজন করুক। তাতে কেউ বাঁধা দিবে না এ আমার নির্দেশ।

আজকের সর্বশেষ সব খবর