ঢাকা ০৩:৩০ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo সাংবাদিক মঈন উদ্দিন এঁর পিতার মৃত্যুতে তরঙ্গ২৪.কম পরিবার গভীরভাবে শোকাহত Logo গ্যানিংগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ পরিষদের উদ্যোগে নানা আয়োজনে মহান বিজয় দিবস উদযাপন Logo মহান বিজয় দিবসে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছে বানিয়াচং মডেল প্রেসক্লাব Logo দেশবাসীকে মহান বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ‘বানিয়াচং ইসলামি নাগরিক ফোরাম’ নেতৃবৃন্দ Logo নূরানী শিক্ষা বোর্ডে মেধা তালিকায় ২য় হয়েছে গ্যানিংগঞ্জ বাজার নূরানী মাদ্রাসার ছাত্রী মুনতাহা আক্তার Logo বানিয়াচংয়ে ১২কেজি গাঁজাসহ কুখ্যাত ৩ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার Logo বানিয়াচং শাহজালাল কে.জি স্কুল ২০২৩ বৃত্তি পরীক্ষায় ঈর্ষণীয় সাফল্য Logo চেয়ারম্যান মোঃ আনোয়ার হোসেন ডা. ইলিয়াছ একাডেমির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নির্বাচিত Logo ৪০তম তাফসিরুল কোরআন মহা সম্মেলন সফল করায় আলহাজ্ব রেজাউল মোহিত খানের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ Logo ইফার সাবেক ফিল্ড অফিসার আব্দুল ওয়াদুদের মৃত্যুতে জেলা মউশিক কল্যাণ পরিষদ নেতৃবৃন্দের শোক

হবিগঞ্জ জেলা রেজিস্টারের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননায় মামলা দায়ের

  • তরঙ্গ ২৪ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০২:১৬:০৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০
  • ১৭৬ বার পড়া হয়েছে

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি॥ হবিগঞ্জের জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমান এর বিরুদ্ধে আবারও আদালত অবমাননার মামলা দায়ের করেছেন এক দলিল লিখক। আদালতের দুই দফা নিষেধাজ্ঞা থাকার পরও সালাউদ্দিন নামে এক দলিল লিখকের সনদ বাতিলের কারণে মঙ্গলবার এই মামলা দায়ের করা হয়েছে। এর আগেও জেলা রেজিস্টার ও মাধবপুর উপজেলার সাব রেজিস্টার শংকর কুমার ধরের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা দায়ের করেন দলিল লিখক সালাউদ্দিন।
আদালত ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলায় ব্যাপক শিল্পায়ন হওয়ায় সেখানকার চারাভাঙ্গা সাব রেজিস্ট্রি অফিসার পদটি অত্যন্ত লোভনীয় পদ হিসাবে পরিচিতি লাভ করে। বর্তমান সাব রেজিস্টার শংকর কুমার ধর এখান থেকে প্রতিমাসে ২০ লক্ষ টাকা ঘুষ বাণিজ্য করেন বলে অভিযোগ করেছেন দলিল লিখক সালাউদ্দিন। প্রতি মাসে তিনি ২ থেকে ৩ লাখ টাকা ভাগ দেন জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমানকে। সালাউদ্দিন এই ঘুষ দূর্ণীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় তার উপর ক্ষিপ্ত হন জেলা রেজিস্টার ও সাব রেজিস্টার। বিভিন্ন সময় তাকে হয়রানীর চেষ্টা করেন তারা। বিগত সময়ে সালাউদ্দিনের বিরুদ্ধে ৫০৬৪১/১৬ নং দলিলে তার বিরুদ্ধে রাজস্ব ফাঁকি দেয়ার অভিযোগ দায়ের করা হয়। এ ব্যাপারে তাকে শোকজও করা হয়। এরই মাঝে বিষয়টি নিয়ে সিআর ২২/১৮ মামলা দায়ের করা হয়। ফলে তার বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগের তদন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাবেক জেলা রেজিস্টার মামলা চলমান থাকায় তদন্ত প্রতিবেদন দেয়া সম্ভব নয় বলে মহা রেজিস্টারকে পত্র প্রেরণ করেন।
এদিকে বর্তমান জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমান ও মাধবপুর উপজেলা সাব রেজিস্টার শংকর কুমার ধর নতুন করে সালাউদ্দিনকে হয়রানীর সুযোগ খুজতে থাকেন। এ ব্যাপারে তারা সালাউদ্দিনের কাছে ৫ লক্ষ টাকা ঘুষ দাবী করেন। কিন্তু সালাউদ্দিন ২ লক্ষ টাকা দিয়ে আর দেয়া যাবে না বলে জানালে তারা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ খুজতে থাকেন। সাবেক জেলা রেজিস্টার ইলিয়াস হোসেন তদন্ত প্রতিবেদন দেয়া সম্ভব নয় বলে প্রতিবেদন দেয়ার পরও জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমান নবীগঞ্জ উপজেলার সাব রেজিস্টারের মাধ্যমে একটি তদন্ত করান। সালাউদ্দিন তার লাইসেন্স বাতিল করার এই প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে সাবেক সিনিয়র সহকারী জজ সাজ্জাদ হোসেন এর আদালতে স্বত্ব ৯৭/২০ মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় বিগত ৪ অক্টোবর বিজ্ঞ বিচারক জেলা রেজিস্টার ও সাব রেজিস্টারকে মামলাটি শুনানী শেষ না হওয়া পর্যন্ত যাতে সালাউদ্দিনের সনদ বাতিল বা কার্যক্রম থেকে বিরত রাখা না হয় তার জন্য অন্তবর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞা প্রদান করেন।
কিন্তু গত ৭ সেপ্টেম্বর মাধবপুর উপজেলার সাব রেজিস্টার শংকর কুমার ধর এখতিয়ার বহির্ভুতভাবে সালাউদ্দিন আহমেদকে একটি পত্র প্রেরণ করে উল্লেখ করেন, উর্ধতন কতৃপক্ষের নির্দেশ না পাওয়া পর্যন্ত সে যেন দলিল লেখা থেকে বিরত থাকে। এ ধরনের আদেশ সাধারনত আইজিআর প্রদান করতে পারেন।
এই আদেশ পেয়ে সালাউদ্দিন সিনিয়র সহাকরী জজ আদালতে জেলা রেজিস্টার ও মাধবপুরের সাব রেজিস্টারের বিরুদ্ধে ওই আদেশকে অবৈধ ও কার্যকরী নহে মর্মে ঘোষণা ছেয়ে নিষেধাজ্ঞা প্রার্থনা করিলে বিজ্ঞা আদালত শুনানী শেষে নিষেধাজ্ঞা মঞ্জুর করে। এই নিষেধাজ্ঞার পরও সালাউদ্দিনকে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে না দিলে সে জেলা রেজিস্টার ও মাধবপুরের সাব রেজিস্টারের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননা মামলা দায়ের করে।
আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকার পরও সালাউদ্দিনকে কেন তার সনদ বাতিল করা হবে না তার জন্য কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করেন জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমান। ১৭ সেপ্টেম্বর এই কারণ দর্শানোর নোটিশ পেয়ে আবারও আদালতের স্মরণাপন্ন হয়ে গত ১ অক্টোবর নিষেধাজ্ঞা ছেয়ে আবেদন করেন সালাউদ্দিন। ৪ অক্টোবর তারিখে আবারও তার সনদ বাতিল না করার জন্য অন্তবর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞার আদেশ দেন বিজ্ঞ বিচারক।
দুই দফা নিষেধাজ্ঞা ও আদালত অবমাননা মামলা দায়েরের পরও বেপরোয়া হয়ে উঠেন জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমান। তিনি গত ১৮ নভেম্বর এক পত্রে সালাউদ্দিনকে তার দলিল লিখকের সনদ সাময়িক স্থগিত এবং তাকে সাব রেজিস্টার অফিসে প্রবেশে নিষেধ করে একটি আদেশ প্রদান করেন। এই পত্র পেয়ে সালাউদ্দিন পুনরায় মঙ্গলবার দুপুরে হবিগঞ্জের সিনিয়র সহকারী জজ একলাছ উদ্দিনের আদালতে জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমান এর বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা দায়ের করেন। মামলাটি আমলে নিয়ে জেলা রেজিস্টারকে সমন এর আদেশ হয়েছে বলে আদালত সূত্রে জানা গেছে।
এ ব্যাপারে দলিল লিখক সালাউদ্দিন জানান, আমার বিরুদ্ধে যে রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে আমি তার জবাব প্রদান করেছি। এ ব্যাপারে যে মামলা রয়েছে তাও মোকাবেলা করছি। আমি কোন রাজস্ব ফাঁকি দেইনি।
তিনি অভিযোগ করে জানান, মাধবপুর উপজেলার সাব রেজিস্টার শংকর কুমার ধর প্রতিমাসে ২০ লাখ টাকা ঘুষ পান দলিল রেজিস্ট্রি থেকে। বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানের দলিল থেকে তিনি ১ লাখ টাকাও ঘুষ নেন। আমি যেহেতু শিল্প প্রতিষ্ঠানের দলিল বেশী করি তাই আমি ঘুষের প্রতিবাদ করায় তিনি আমার উপর ক্ষিপ্ত হন। প্রতি মাসে তিনি জেলা রেজিস্টারকে ২/৩ লাখ টাকার ভাগ দেন। ফলে তারা দুইজন মিলে আমাকে হয়রানী করছেন।
এ ব্যাপারে সালাউদ্দিন এর আইনজীবী দেবাশীষ পাল চৌধুরী বলেন, সরকারী নিবন্ধন ম্যানুয়েল ২০১৪ এর ৬৩(ক) এর ১ ও ২ উপধারা অনুযায়ী এবং ডিএলআর ৩৯(এডি) ২২৩ পৃষ্টায় বলা আছে দলিল রেজিস্ট্রির পর যদি কোন রাজস্ব আদায়ে অনিয়ম হয়ে থাকে তার দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট নিবন্ধকের। দলিল লিখকের এতে কোন দায় নেই। আদালতের নিষেধাজ্ঞা ও অবমাননার মামলা থাকার পরও একজন সরকারী কর্মকর্তা যেভাবে তা অমান্য করছেন তা নজির বিহীন। এতে করে সাধারন মানুষের আইন না মানার প্রবনতা বৃদ্ধি পাবে।
এ দিকে জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে তার এক কম্পিউটার অপারেটরের মাধ্যমে তার দপ্তরের কর্মচারীদেরকে টাকার বিনিময়ে বদলী, বিভিন্ন দলিল লিখকের নামে বিভিন্ন লোক মারফত মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে তা তদন্তের নামে টাকা আদায় করেন। দলিল লিখকদের লাইসেন্স বাতিলের হুমকি দিয়েও এই টাকা আদায় করা হয়। এ ব্যাপারে বিভিন্ন মিডিয়ায় নিয়মিত সংবাদ প্রকাশিত হয়ে আসছে।
এ ব্যাপারে জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমানের সাথে পূর্বে ফোন করলে তিনি বলেছিলেন, তিনি শুধু রুটিন ওয়ার্ক করছেন। কারও সনদ বাতিল করা হবে না। তবে মঙ্গলবার আদালতে মামলা দায়ের হলে তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান মামলার বিষয়টি তিনি জানেন না।
আদালতে নিষেধাজ্ঞা ও অবমাননা মামলা থাকার পরও কিভাবে দলিল লিখকের সনদ বাতিল করেছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, আদালতের বিষয়টি আমি আদালতেই দেখব। আর কোন তদন্ত আমি নিজে করিনা। এগুলো আইজিআরের নির্দেশে হয়। আপনারা শুধু আমার বিষয়েই লিখেন। রাজস্ব ফাকির বিষয়টি কেন লিখেন না।
এ ব্যাপারে মাধবপুর উপজেলার সাব রেজিস্টার শংকর কুমার ধর এর এর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনিও ফোন রিসিভ করেননি। এ ব্যাপারে ক্ষুদে বার্তা প্রেরণ করার পরও তিনি কোন প্রতিক্রিয়া জানাননি।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

সাংবাদিক মঈন উদ্দিন এঁর পিতার মৃত্যুতে তরঙ্গ২৪.কম পরিবার গভীরভাবে শোকাহত

হবিগঞ্জ জেলা রেজিস্টারের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননায় মামলা দায়ের

আপডেট সময় ০২:১৬:০৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি॥ হবিগঞ্জের জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমান এর বিরুদ্ধে আবারও আদালত অবমাননার মামলা দায়ের করেছেন এক দলিল লিখক। আদালতের দুই দফা নিষেধাজ্ঞা থাকার পরও সালাউদ্দিন নামে এক দলিল লিখকের সনদ বাতিলের কারণে মঙ্গলবার এই মামলা দায়ের করা হয়েছে। এর আগেও জেলা রেজিস্টার ও মাধবপুর উপজেলার সাব রেজিস্টার শংকর কুমার ধরের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা দায়ের করেন দলিল লিখক সালাউদ্দিন।
আদালত ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলায় ব্যাপক শিল্পায়ন হওয়ায় সেখানকার চারাভাঙ্গা সাব রেজিস্ট্রি অফিসার পদটি অত্যন্ত লোভনীয় পদ হিসাবে পরিচিতি লাভ করে। বর্তমান সাব রেজিস্টার শংকর কুমার ধর এখান থেকে প্রতিমাসে ২০ লক্ষ টাকা ঘুষ বাণিজ্য করেন বলে অভিযোগ করেছেন দলিল লিখক সালাউদ্দিন। প্রতি মাসে তিনি ২ থেকে ৩ লাখ টাকা ভাগ দেন জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমানকে। সালাউদ্দিন এই ঘুষ দূর্ণীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় তার উপর ক্ষিপ্ত হন জেলা রেজিস্টার ও সাব রেজিস্টার। বিভিন্ন সময় তাকে হয়রানীর চেষ্টা করেন তারা। বিগত সময়ে সালাউদ্দিনের বিরুদ্ধে ৫০৬৪১/১৬ নং দলিলে তার বিরুদ্ধে রাজস্ব ফাঁকি দেয়ার অভিযোগ দায়ের করা হয়। এ ব্যাপারে তাকে শোকজও করা হয়। এরই মাঝে বিষয়টি নিয়ে সিআর ২২/১৮ মামলা দায়ের করা হয়। ফলে তার বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগের তদন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাবেক জেলা রেজিস্টার মামলা চলমান থাকায় তদন্ত প্রতিবেদন দেয়া সম্ভব নয় বলে মহা রেজিস্টারকে পত্র প্রেরণ করেন।
এদিকে বর্তমান জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমান ও মাধবপুর উপজেলা সাব রেজিস্টার শংকর কুমার ধর নতুন করে সালাউদ্দিনকে হয়রানীর সুযোগ খুজতে থাকেন। এ ব্যাপারে তারা সালাউদ্দিনের কাছে ৫ লক্ষ টাকা ঘুষ দাবী করেন। কিন্তু সালাউদ্দিন ২ লক্ষ টাকা দিয়ে আর দেয়া যাবে না বলে জানালে তারা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ খুজতে থাকেন। সাবেক জেলা রেজিস্টার ইলিয়াস হোসেন তদন্ত প্রতিবেদন দেয়া সম্ভব নয় বলে প্রতিবেদন দেয়ার পরও জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমান নবীগঞ্জ উপজেলার সাব রেজিস্টারের মাধ্যমে একটি তদন্ত করান। সালাউদ্দিন তার লাইসেন্স বাতিল করার এই প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে সাবেক সিনিয়র সহকারী জজ সাজ্জাদ হোসেন এর আদালতে স্বত্ব ৯৭/২০ মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় বিগত ৪ অক্টোবর বিজ্ঞ বিচারক জেলা রেজিস্টার ও সাব রেজিস্টারকে মামলাটি শুনানী শেষ না হওয়া পর্যন্ত যাতে সালাউদ্দিনের সনদ বাতিল বা কার্যক্রম থেকে বিরত রাখা না হয় তার জন্য অন্তবর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞা প্রদান করেন।
কিন্তু গত ৭ সেপ্টেম্বর মাধবপুর উপজেলার সাব রেজিস্টার শংকর কুমার ধর এখতিয়ার বহির্ভুতভাবে সালাউদ্দিন আহমেদকে একটি পত্র প্রেরণ করে উল্লেখ করেন, উর্ধতন কতৃপক্ষের নির্দেশ না পাওয়া পর্যন্ত সে যেন দলিল লেখা থেকে বিরত থাকে। এ ধরনের আদেশ সাধারনত আইজিআর প্রদান করতে পারেন।
এই আদেশ পেয়ে সালাউদ্দিন সিনিয়র সহাকরী জজ আদালতে জেলা রেজিস্টার ও মাধবপুরের সাব রেজিস্টারের বিরুদ্ধে ওই আদেশকে অবৈধ ও কার্যকরী নহে মর্মে ঘোষণা ছেয়ে নিষেধাজ্ঞা প্রার্থনা করিলে বিজ্ঞা আদালত শুনানী শেষে নিষেধাজ্ঞা মঞ্জুর করে। এই নিষেধাজ্ঞার পরও সালাউদ্দিনকে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে না দিলে সে জেলা রেজিস্টার ও মাধবপুরের সাব রেজিস্টারের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননা মামলা দায়ের করে।
আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকার পরও সালাউদ্দিনকে কেন তার সনদ বাতিল করা হবে না তার জন্য কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করেন জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমান। ১৭ সেপ্টেম্বর এই কারণ দর্শানোর নোটিশ পেয়ে আবারও আদালতের স্মরণাপন্ন হয়ে গত ১ অক্টোবর নিষেধাজ্ঞা ছেয়ে আবেদন করেন সালাউদ্দিন। ৪ অক্টোবর তারিখে আবারও তার সনদ বাতিল না করার জন্য অন্তবর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞার আদেশ দেন বিজ্ঞ বিচারক।
দুই দফা নিষেধাজ্ঞা ও আদালত অবমাননা মামলা দায়েরের পরও বেপরোয়া হয়ে উঠেন জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমান। তিনি গত ১৮ নভেম্বর এক পত্রে সালাউদ্দিনকে তার দলিল লিখকের সনদ সাময়িক স্থগিত এবং তাকে সাব রেজিস্টার অফিসে প্রবেশে নিষেধ করে একটি আদেশ প্রদান করেন। এই পত্র পেয়ে সালাউদ্দিন পুনরায় মঙ্গলবার দুপুরে হবিগঞ্জের সিনিয়র সহকারী জজ একলাছ উদ্দিনের আদালতে জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমান এর বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা দায়ের করেন। মামলাটি আমলে নিয়ে জেলা রেজিস্টারকে সমন এর আদেশ হয়েছে বলে আদালত সূত্রে জানা গেছে।
এ ব্যাপারে দলিল লিখক সালাউদ্দিন জানান, আমার বিরুদ্ধে যে রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে আমি তার জবাব প্রদান করেছি। এ ব্যাপারে যে মামলা রয়েছে তাও মোকাবেলা করছি। আমি কোন রাজস্ব ফাঁকি দেইনি।
তিনি অভিযোগ করে জানান, মাধবপুর উপজেলার সাব রেজিস্টার শংকর কুমার ধর প্রতিমাসে ২০ লাখ টাকা ঘুষ পান দলিল রেজিস্ট্রি থেকে। বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানের দলিল থেকে তিনি ১ লাখ টাকাও ঘুষ নেন। আমি যেহেতু শিল্প প্রতিষ্ঠানের দলিল বেশী করি তাই আমি ঘুষের প্রতিবাদ করায় তিনি আমার উপর ক্ষিপ্ত হন। প্রতি মাসে তিনি জেলা রেজিস্টারকে ২/৩ লাখ টাকার ভাগ দেন। ফলে তারা দুইজন মিলে আমাকে হয়রানী করছেন।
এ ব্যাপারে সালাউদ্দিন এর আইনজীবী দেবাশীষ পাল চৌধুরী বলেন, সরকারী নিবন্ধন ম্যানুয়েল ২০১৪ এর ৬৩(ক) এর ১ ও ২ উপধারা অনুযায়ী এবং ডিএলআর ৩৯(এডি) ২২৩ পৃষ্টায় বলা আছে দলিল রেজিস্ট্রির পর যদি কোন রাজস্ব আদায়ে অনিয়ম হয়ে থাকে তার দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট নিবন্ধকের। দলিল লিখকের এতে কোন দায় নেই। আদালতের নিষেধাজ্ঞা ও অবমাননার মামলা থাকার পরও একজন সরকারী কর্মকর্তা যেভাবে তা অমান্য করছেন তা নজির বিহীন। এতে করে সাধারন মানুষের আইন না মানার প্রবনতা বৃদ্ধি পাবে।
এ দিকে জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে তার এক কম্পিউটার অপারেটরের মাধ্যমে তার দপ্তরের কর্মচারীদেরকে টাকার বিনিময়ে বদলী, বিভিন্ন দলিল লিখকের নামে বিভিন্ন লোক মারফত মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে তা তদন্তের নামে টাকা আদায় করেন। দলিল লিখকদের লাইসেন্স বাতিলের হুমকি দিয়েও এই টাকা আদায় করা হয়। এ ব্যাপারে বিভিন্ন মিডিয়ায় নিয়মিত সংবাদ প্রকাশিত হয়ে আসছে।
এ ব্যাপারে জেলা রেজিস্টার মিজানুর রহমানের সাথে পূর্বে ফোন করলে তিনি বলেছিলেন, তিনি শুধু রুটিন ওয়ার্ক করছেন। কারও সনদ বাতিল করা হবে না। তবে মঙ্গলবার আদালতে মামলা দায়ের হলে তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান মামলার বিষয়টি তিনি জানেন না।
আদালতে নিষেধাজ্ঞা ও অবমাননা মামলা থাকার পরও কিভাবে দলিল লিখকের সনদ বাতিল করেছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, আদালতের বিষয়টি আমি আদালতেই দেখব। আর কোন তদন্ত আমি নিজে করিনা। এগুলো আইজিআরের নির্দেশে হয়। আপনারা শুধু আমার বিষয়েই লিখেন। রাজস্ব ফাকির বিষয়টি কেন লিখেন না।
এ ব্যাপারে মাধবপুর উপজেলার সাব রেজিস্টার শংকর কুমার ধর এর এর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনিও ফোন রিসিভ করেননি। এ ব্যাপারে ক্ষুদে বার্তা প্রেরণ করার পরও তিনি কোন প্রতিক্রিয়া জানাননি।