ঢাকা ১২:২২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo সাংবাদিক মঈন উদ্দিন এঁর পিতার মৃত্যুতে তরঙ্গ২৪.কম পরিবার গভীরভাবে শোকাহত Logo গ্যানিংগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ পরিষদের উদ্যোগে নানা আয়োজনে মহান বিজয় দিবস উদযাপন Logo মহান বিজয় দিবসে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছে বানিয়াচং মডেল প্রেসক্লাব Logo দেশবাসীকে মহান বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ‘বানিয়াচং ইসলামি নাগরিক ফোরাম’ নেতৃবৃন্দ Logo নূরানী শিক্ষা বোর্ডে মেধা তালিকায় ২য় হয়েছে গ্যানিংগঞ্জ বাজার নূরানী মাদ্রাসার ছাত্রী মুনতাহা আক্তার Logo বানিয়াচংয়ে ১২কেজি গাঁজাসহ কুখ্যাত ৩ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার Logo বানিয়াচং শাহজালাল কে.জি স্কুল ২০২৩ বৃত্তি পরীক্ষায় ঈর্ষণীয় সাফল্য Logo চেয়ারম্যান মোঃ আনোয়ার হোসেন ডা. ইলিয়াছ একাডেমির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নির্বাচিত Logo ৪০তম তাফসিরুল কোরআন মহা সম্মেলন সফল করায় আলহাজ্ব রেজাউল মোহিত খানের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ Logo ইফার সাবেক ফিল্ড অফিসার আব্দুল ওয়াদুদের মৃত্যুতে জেলা মউশিক কল্যাণ পরিষদ নেতৃবৃন্দের শোক

হবিগঞ্জে হুমকির মুখে লাইব্রেরি ব্যবসা, প্রণোদনা দাবি

  • তরঙ্গ ২৪ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ১১:৩৯:৪৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৫ মে ২০২০
  • ১৫০ বার পড়া হয়েছে

‘বই হচ্ছে অতীত আর বর্তমানের মধ্যে সাঁকো’ বিশ্ব কবি রবীন্দ্র নাথ ঠাকুরের সেই বই এর ব্যবসায়ীরা ভালো নেই। করোনাভাইরাসের কারণে প্রায় ২ মাসের উপরে হতে চলেছে লাইব্রেরিগুলো বন্ধ। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার আগ পর্যন্ত লাইব্রেরি ব্যবসাও বন্ধ। একেকটা লাইব্রেরিতে রয়েছে লাখ-লাখ টাকার বই। প্রত্যেক বছরের প্রথম ৩ মাস হচ্ছে বই এর সৃজন।

সেই সৃজনের সময়েই বিশ্বব্যাপি হানা দিয়েছে করোনাভাইরাস। এর মধ্যে ফেব্রুয়ারি মাসের শেষের দিকেই এ দেশে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। সরকার কতৃক লকডাউনের ফলে লাইব্রেরি গুলো বন্ধ থাকায় হুমকির মুখে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা।

অন্যদিকে হু হু করে দোকান ভাড়া বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেই সাথে বিদ্যুৎবিল এবং কর্মচারীর বেতনও। কবে নাগাদ পরিবেশ স্বাভাবিক হবে এরও কোন নিশ্চয়তা নেই। হাতে যে টাকা জমা ছিল সে টাকাও অনেক আগেই শেষ হয়ে গেছে অনেকের। এর মধ্যে ঋণের গ্নানি টানছেন অনেক ব্যবসায়ী। সবদিক মিলিয়ে এক বড় ধরণের লোকসানের মুখে পড়তে যাচ্ছেন তারা।

অন্যান্য ব্যবসায়ীদের ২ ঈদে জমজমাট বেঁচাকেনা হলেও লাইব্রেরি ব্যবসায়ীদের ঈদের কোন বেঁচাকেনা নেই। নতুন বছরের প্রথম ৩ মাস হচ্ছে বই এর মূল সৃজন। দূর্ভাগ্যজনকভাবে সেই সৃজনই হানা দিয়েছে প্রাণঘাতি করোন ভাইরাস।

বনিয়াচং বড় বাজারস্থ ছাত্রবন্ধু লাইব্রেরির সত্তাধিকারি মো. এনামুল হোসেন জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে লাইব্রেরি ব্যবসাতে ধ্বস নেমেছে। স্কুল কলেজ না খুললে এ ব্যবসার সাথে আমরা যারা জড়িত আছি তারা প্রায় নি:শেষের পথে। বর্তমানে স্বাভাবিক জীবন যাপন করা কঠিন হয়ে পড়েছে। সেই সাথে জমা হচ্ছে দোকান ভাড়া, কর্মচারীর বেতন এবং বিদ্যুৎবিল। এ ক্ষেত্রে সরকারের সু-দৃষ্টি কামনা করছি।

বানিয়াচংয়ে পাঠ্য পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতির নীতিমালা শাখার সভাপতি মাওলানা মোবাশ্বির আহমদ জানান, লাইব্রেরি হচ্ছে সম্মানজনক একটা ব্যবসা। সে ব্যবসার সাথে লাখ-লাখ ছাত্র-ছাত্রীর জ্ঞান জড়িত। করোনাভাইরাসের কারণে অনেক ব্যবসাীরাই ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। তারা যদি প্রণোদনা পেতে পারেন, তাহলে লাইব্রেরি ব্যবসায়ীরা কেন সরকারি প্রণোদনা পাবেন না ? লাইব্রেরি ব্যবসাকে টিকিয়ে রাখতে হলে সুদমুক্ত সহজ ঋণের মাধ্যমে লোন দিতে হবে সরকারকে। সরকারি প্রণোদনার ব্যবস্থা করে দিতে পাঠ্য পুস্তক প্রকাশক ও কেন্দ্রীয় বিক্রেতা সমিতির সু-দৃষ্টি কামনা করি।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

সাংবাদিক মঈন উদ্দিন এঁর পিতার মৃত্যুতে তরঙ্গ২৪.কম পরিবার গভীরভাবে শোকাহত

হবিগঞ্জে হুমকির মুখে লাইব্রেরি ব্যবসা, প্রণোদনা দাবি

আপডেট সময় ১১:৩৯:৪৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৫ মে ২০২০

‘বই হচ্ছে অতীত আর বর্তমানের মধ্যে সাঁকো’ বিশ্ব কবি রবীন্দ্র নাথ ঠাকুরের সেই বই এর ব্যবসায়ীরা ভালো নেই। করোনাভাইরাসের কারণে প্রায় ২ মাসের উপরে হতে চলেছে লাইব্রেরিগুলো বন্ধ। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার আগ পর্যন্ত লাইব্রেরি ব্যবসাও বন্ধ। একেকটা লাইব্রেরিতে রয়েছে লাখ-লাখ টাকার বই। প্রত্যেক বছরের প্রথম ৩ মাস হচ্ছে বই এর সৃজন।

সেই সৃজনের সময়েই বিশ্বব্যাপি হানা দিয়েছে করোনাভাইরাস। এর মধ্যে ফেব্রুয়ারি মাসের শেষের দিকেই এ দেশে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। সরকার কতৃক লকডাউনের ফলে লাইব্রেরি গুলো বন্ধ থাকায় হুমকির মুখে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা।

অন্যদিকে হু হু করে দোকান ভাড়া বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেই সাথে বিদ্যুৎবিল এবং কর্মচারীর বেতনও। কবে নাগাদ পরিবেশ স্বাভাবিক হবে এরও কোন নিশ্চয়তা নেই। হাতে যে টাকা জমা ছিল সে টাকাও অনেক আগেই শেষ হয়ে গেছে অনেকের। এর মধ্যে ঋণের গ্নানি টানছেন অনেক ব্যবসায়ী। সবদিক মিলিয়ে এক বড় ধরণের লোকসানের মুখে পড়তে যাচ্ছেন তারা।

অন্যান্য ব্যবসায়ীদের ২ ঈদে জমজমাট বেঁচাকেনা হলেও লাইব্রেরি ব্যবসায়ীদের ঈদের কোন বেঁচাকেনা নেই। নতুন বছরের প্রথম ৩ মাস হচ্ছে বই এর মূল সৃজন। দূর্ভাগ্যজনকভাবে সেই সৃজনই হানা দিয়েছে প্রাণঘাতি করোন ভাইরাস।

বনিয়াচং বড় বাজারস্থ ছাত্রবন্ধু লাইব্রেরির সত্তাধিকারি মো. এনামুল হোসেন জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে লাইব্রেরি ব্যবসাতে ধ্বস নেমেছে। স্কুল কলেজ না খুললে এ ব্যবসার সাথে আমরা যারা জড়িত আছি তারা প্রায় নি:শেষের পথে। বর্তমানে স্বাভাবিক জীবন যাপন করা কঠিন হয়ে পড়েছে। সেই সাথে জমা হচ্ছে দোকান ভাড়া, কর্মচারীর বেতন এবং বিদ্যুৎবিল। এ ক্ষেত্রে সরকারের সু-দৃষ্টি কামনা করছি।

বানিয়াচংয়ে পাঠ্য পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতির নীতিমালা শাখার সভাপতি মাওলানা মোবাশ্বির আহমদ জানান, লাইব্রেরি হচ্ছে সম্মানজনক একটা ব্যবসা। সে ব্যবসার সাথে লাখ-লাখ ছাত্র-ছাত্রীর জ্ঞান জড়িত। করোনাভাইরাসের কারণে অনেক ব্যবসাীরাই ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। তারা যদি প্রণোদনা পেতে পারেন, তাহলে লাইব্রেরি ব্যবসায়ীরা কেন সরকারি প্রণোদনা পাবেন না ? লাইব্রেরি ব্যবসাকে টিকিয়ে রাখতে হলে সুদমুক্ত সহজ ঋণের মাধ্যমে লোন দিতে হবে সরকারকে। সরকারি প্রণোদনার ব্যবস্থা করে দিতে পাঠ্য পুস্তক প্রকাশক ও কেন্দ্রীয় বিক্রেতা সমিতির সু-দৃষ্টি কামনা করি।