ঢাকা ০২:০৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo সাংবাদিক মঈন উদ্দিন এঁর পিতার মৃত্যুতে তরঙ্গ২৪.কম পরিবার গভীরভাবে শোকাহত Logo গ্যানিংগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ পরিষদের উদ্যোগে নানা আয়োজনে মহান বিজয় দিবস উদযাপন Logo মহান বিজয় দিবসে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছে বানিয়াচং মডেল প্রেসক্লাব Logo দেশবাসীকে মহান বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ‘বানিয়াচং ইসলামি নাগরিক ফোরাম’ নেতৃবৃন্দ Logo নূরানী শিক্ষা বোর্ডে মেধা তালিকায় ২য় হয়েছে গ্যানিংগঞ্জ বাজার নূরানী মাদ্রাসার ছাত্রী মুনতাহা আক্তার Logo বানিয়াচংয়ে ১২কেজি গাঁজাসহ কুখ্যাত ৩ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার Logo বানিয়াচং শাহজালাল কে.জি স্কুল ২০২৩ বৃত্তি পরীক্ষায় ঈর্ষণীয় সাফল্য Logo চেয়ারম্যান মোঃ আনোয়ার হোসেন ডা. ইলিয়াছ একাডেমির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নির্বাচিত Logo ৪০তম তাফসিরুল কোরআন মহা সম্মেলন সফল করায় আলহাজ্ব রেজাউল মোহিত খানের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ Logo ইফার সাবেক ফিল্ড অফিসার আব্দুল ওয়াদুদের মৃত্যুতে জেলা মউশিক কল্যাণ পরিষদ নেতৃবৃন্দের শোক

বানিয়াচংয়ের বৃক্ষপ্রেমিক চেয়ারম্যান হাজী আব্দুছ ছত্তারের ২৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

  • তরঙ্গ ২৪ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০৩:৫২:৫২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১১ ডিসেম্বর ২০২০
  • ১৪১ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : বানিয়াচংয়ের বৃক্ষপ্রেমিক চেয়ারম্যান হাজী আব্দুছ ছত্তারের ২৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ শুক্রবার। একাত্তর সনের দক্ষিণ বানিয়াচং সংগ্রাম কমিটির সভাপতি ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক এবং মহাগ্রাম বানিয়াচং সদরের বিলুপ্ত ২নং যাত্রাপাশা (বর্তমান ৩নং ও ৪নং) ইউ.পি’র সাবেক চেয়ারম্যান ছিলেন তিনি। সবাই তাঁকে হাজী সাহেব বলে ডাকতো। এ উপলক্ষে মরহুমের হবিগঞ্জ বানিজ্যিক এলাকাস্থিত উত্তরা কমপ্লেক্সের বাসায় ও গ্রামের বাড়ি বানিয়াচংয়ে কবর জিয়ারত ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। স্পষ্টভাষী হাজী আব্দুছ ছত্তার বৃটিশ বিরোধী আন্দোলন ও রেফারেন্ডামে ছিলেন অত্যন্ত সক্রিয়। মুক্তিযুদ্ধকালে তিনি সুনামগঞ্জের ব্যালাট ও টাকেরঘাট সাব-সেক্টরে সংগঠকের প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করেছিলেন। ৫০ এর দশকে তিনি নিজ বাড়িতে যাত্রাপাশা প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন। স্বাধীনতার পর বানিয়াচং গার্লস হাইস্কুল ও পরবর্তীতে ডাঃ ইলিয়াস এডাডেমি প্রতিষ্ঠায় মূখ্য ভূমিকা রাখেন। জনাব আলী কলেজ প্রতিষ্ঠায় তাঁর অবদান কিংবদন্তিতুল্য। তিনি দীর্ঘদিন বানিয়াচং এল আর হাই স্কুলের গভর্নিং বডির সদস্য ছিলেন। বানিয়াচং অঞ্চলে বৃক্ষরোপনে বিপ্লব ঘটিয়ে অনুকরণীয় ও অনুসরনীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন তিনি। যা এখনও বিভিন্ন সড়ক ও প্রতিষ্ঠানে দৃশ্যমান রয়েছে। তিনি জনগণকে ছেলে বা মেয়ে জন্ম হলে দু’টি কড়ইগাছ রোপনে উদ্বুদ্ধ করতেন। এমনকি নিজে মানূষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে বৃক্ষরোপন করে দিতেন। জনপ্রতিনিধি থাকাকালীন টেক্স প্রদানে উৎসাহিত করার জন্য নিজেই মানূষের বাড়িতে কলাগাছ রোপন করে দেয়া ছিল তাঁর নেশা।

উল্লেখ্য, সাবেক ব্যাংকার আব্দুল মালেক এজাজ ও সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী (মমিন) এবং রোকশানা বেগম লাভলী এর পিতা মরহুম হাজী আব্দুছ ছাত্তার ১৯৯৫ খ্রি. হবিগঞ্জ বানিজ্যিক এলাকাস্থিত উত্তরা কমপ্লেক্সের লাভলী ভিলাস্হ নিজ বাসভবনে সকাল ৭ টায় মৃত্যুবরণ করেন ।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

সাংবাদিক মঈন উদ্দিন এঁর পিতার মৃত্যুতে তরঙ্গ২৪.কম পরিবার গভীরভাবে শোকাহত

বানিয়াচংয়ের বৃক্ষপ্রেমিক চেয়ারম্যান হাজী আব্দুছ ছত্তারের ২৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

আপডেট সময় ০৩:৫২:৫২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১১ ডিসেম্বর ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক : বানিয়াচংয়ের বৃক্ষপ্রেমিক চেয়ারম্যান হাজী আব্দুছ ছত্তারের ২৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ শুক্রবার। একাত্তর সনের দক্ষিণ বানিয়াচং সংগ্রাম কমিটির সভাপতি ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক এবং মহাগ্রাম বানিয়াচং সদরের বিলুপ্ত ২নং যাত্রাপাশা (বর্তমান ৩নং ও ৪নং) ইউ.পি’র সাবেক চেয়ারম্যান ছিলেন তিনি। সবাই তাঁকে হাজী সাহেব বলে ডাকতো। এ উপলক্ষে মরহুমের হবিগঞ্জ বানিজ্যিক এলাকাস্থিত উত্তরা কমপ্লেক্সের বাসায় ও গ্রামের বাড়ি বানিয়াচংয়ে কবর জিয়ারত ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। স্পষ্টভাষী হাজী আব্দুছ ছত্তার বৃটিশ বিরোধী আন্দোলন ও রেফারেন্ডামে ছিলেন অত্যন্ত সক্রিয়। মুক্তিযুদ্ধকালে তিনি সুনামগঞ্জের ব্যালাট ও টাকেরঘাট সাব-সেক্টরে সংগঠকের প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করেছিলেন। ৫০ এর দশকে তিনি নিজ বাড়িতে যাত্রাপাশা প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন। স্বাধীনতার পর বানিয়াচং গার্লস হাইস্কুল ও পরবর্তীতে ডাঃ ইলিয়াস এডাডেমি প্রতিষ্ঠায় মূখ্য ভূমিকা রাখেন। জনাব আলী কলেজ প্রতিষ্ঠায় তাঁর অবদান কিংবদন্তিতুল্য। তিনি দীর্ঘদিন বানিয়াচং এল আর হাই স্কুলের গভর্নিং বডির সদস্য ছিলেন। বানিয়াচং অঞ্চলে বৃক্ষরোপনে বিপ্লব ঘটিয়ে অনুকরণীয় ও অনুসরনীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন তিনি। যা এখনও বিভিন্ন সড়ক ও প্রতিষ্ঠানে দৃশ্যমান রয়েছে। তিনি জনগণকে ছেলে বা মেয়ে জন্ম হলে দু’টি কড়ইগাছ রোপনে উদ্বুদ্ধ করতেন। এমনকি নিজে মানূষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে বৃক্ষরোপন করে দিতেন। জনপ্রতিনিধি থাকাকালীন টেক্স প্রদানে উৎসাহিত করার জন্য নিজেই মানূষের বাড়িতে কলাগাছ রোপন করে দেয়া ছিল তাঁর নেশা।

উল্লেখ্য, সাবেক ব্যাংকার আব্দুল মালেক এজাজ ও সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী (মমিন) এবং রোকশানা বেগম লাভলী এর পিতা মরহুম হাজী আব্দুছ ছাত্তার ১৯৯৫ খ্রি. হবিগঞ্জ বানিজ্যিক এলাকাস্থিত উত্তরা কমপ্লেক্সের লাভলী ভিলাস্হ নিজ বাসভবনে সকাল ৭ টায় মৃত্যুবরণ করেন ।